দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত আবদুল হামিদ

0
15

রাষ্ট্রপতি পদে একজন মাত্র প্রার্থী থাকায় ভোট হচ্ছে না এবারও। আবদুল হামিদকেই দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য নির্বাচিত ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। ১৯৯১ সালের পর এই প্রথম কেউ দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলেন।

বুধবার নির্বাচন কমিশন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন।

সিইসি জানান, আগামী ২৩ এপ্রিল ২১তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিতে পারেন আব্দুল হামিদ। আজ এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে বঙ্গভবন যাচ্ছেন সিইসি।

১৮ ফেব্রুয়ারিকে ভোটের দিন ধরে গত ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তফসিল ঘোষণা করেন সিইসি। এতে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় নির্ধারণ করা হয় ৫ ফেব্রুয়ারি। আর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের জন্য সময় নির্ধারিত হয় ৭ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ১০ ফেব্রুয়ারি।

বাংলাদেশ সংসদীয় গণতন্ত্রে ফেরার পর থেকে সংবিধান অনুযায়ী সংসদ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আসছেন রাষ্ট্রপতি। আর সংসদে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের সিদ্ধান্তের বাইরে কারও রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসার সুযোগ নেই। কারণ, দলের সিদ্ধান্তের বাইরে ভোট দিতে পারেন না সংসদ সদস্যরা।

বাংলাদেশে ১৯৯১ সালে বিএনপি সরকারে আসার পর একবার ভোট হয়েছিল রাষ্ট্রপতি পদে। এরপর থেকে আওয়ামী লীগের আমলে সাহাবুদ্দিন আহমেদ, বিএনপি পরের আমলে প্রথমে বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং পরে ইয়াজউদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতি হন। আওয়ামী লীগ পুনরায় ক্ষমতায় এলে জিল্লুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি করেন। ২০১৩ সালে তিনি ইন্তেকাল করলে আবদুল হামিদ কিছুদিন ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি ছিলেন। পরে আবদুল হামিদ নির্বাচিত হন। তাদের সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

সংবিধান অনুযায়ী একজনের পক্ষে দুই মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হওয়া সম্ভব। আর আবদুল হামিদই প্রথম ব্যক্তি যিনি বাংলাদেশে সংসদীয় গণতন্ত্রে ফেরার পর দুই মেয়াদে নির্বাচিত হলেন।

অবশ্য এর আগে ৯১ সালের পর বিএনপি সরকারের দ্বিতীয় আমলে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহমেদ সাত বছর রাষ্ট্রপতি ছিলেন। এর মধ্যে পাঁচ বছর মেয়াদ শেষ হওয়ার পরের দুই বছর তিনি রাষ্ট্রপতি ছিলেন জরুরি অবস্থা জারির সুবাদে।

সংসদীয় গণতন্ত্রে রাষ্ট্রপতি পদটি আলঙ্করিক হলেও জাতীয় নির্বাচনের আগে এক ধরনের মনস্তাত্ত্বিক শক্তি যোগায় পদটি। আর ভোটের বছর নানা হিসেব নিকেশ করেই আগাতে হয়েছে আওয়ামী লীগকে।

আবার রাষ্ট্রপতি সব সিদ্ধান্ত গ্রহণে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ মানতে বাধ্য হলেও নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী এবং প্রধান বিচারপতি নিয়োগের সিদ্ধান্ত তিনি স্বাধীনভাবেই নিতে পারেন।

এবার রাষ্ট্রপতির মেয়াদ শেষ হয়ে আসার প্রেক্ষিতে এই পদের জন্য বেশ কয়েকজনের নাম এসেছিল গণমাধ্যমে। সরকারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো না হলেও যাদের নাম এসেছিল তাদের বিষয়ে চিন্তাভাবনাও করা হয়েছিল। তবে শেষমেশ আবদুল হামিদকেই দ্বিতীয় মেয়াদে রাখার বিষয়ে একমত হন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব।

গত ৩১ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড আবদুল হামিদকে দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি করতে দলের মনোনয়ন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে বঙ্গভবনে গিয়ে এই সিদ্ধান্ত তার হাতে তুলে দেন।

পরদিন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ নির্বাচন কমিশন থেকে আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে তা বঙ্গভবনে পৌঁছে দেন।

সেই মনোনয়ন ফরম পূরণ করার পর ৫ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে তা জমা দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সেদিন তিনি সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘আমাদের কাছে মনে হচ্ছে তিনিই (আবদুল হামিদ) এই মুহূর্তে গ্রহণযোগ্য ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি। একটি দল করেও তিনি সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন।’

ক্ষমতাসীন দলের নেতারা জানিয়েছেন, ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে বা ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারির আগ পর্যন্ত সে সময়ের রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে বিরূপ অভিজ্ঞতা হয়েছিল তাদের। এই বিবেচনায় এই পদে পরিবর্তন আনার কোনো ভাবনা গুরুত্ব পায়নি তাদের কাছে।

আবদুল হামিদের বর্ণাঢ্য জীবন

আবদুল হামিদের রাজনৈতিক জীবন বর্ণাঢ্য। ১৯৪৪ সালের ১ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার কামালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আবদুল হামিদ। তার রাজনৈতিক জীবন শুরু হয় ১৯৫৯ সালে, ছাত্রলীগে যোগ দেয়ার মধ্য দিয়ে।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে ময়মনসিংহ-১৮ আসন থেকে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হন আবদুল হামিদ। মুক্তিযুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে চলতি বছর আব্দুল হামিদকে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করা হয়।

১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ দেশের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-৫ আসন থেকে নির্বাচিত হন আবদুল হামিদ। ১৯৮৬ সালের তৃতীয় সংসদ, ১৯৯১ সালের পঞ্চম সংসদ, ১৯৯৬ সালের সপ্তম সংসদ, ২০০১ সালের অষ্টম সংসদ এবং সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনেও তিনি সাংসদ নির্বাচিত হন।

সপ্তম সংসদে ১৯৯৬ সালের  ১৩ জুলাই থেকে ২০০১ এর  ১০ জুলাই পর্যন্ত ডেপুটি স্পিকারের দায়িত্ব পালনের পর ২০০১ এর ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত স্পিকার হিসাবে সংসদ পরিচালনা করেন আবদুল হামিদ।আর নবম সংসদে নির্বাচিত হওয়ার পর দ্বিতীয়বারের মতো স্পিকার হন।

আবদুল হামিদ রাষ্ট্রপতি হওয়ার পরও তার ‘সাধারণ মানুষের’ পরিচয় ধরে রেখেছেন। নানা সময় তার সে নমুনাও দেখা গেছে।

২০১৭ সালের মার্চে কিলোরগঞ্জের মিঠামইন সফরে গিয়ে রিকশায় করে রাষ্ট্রপতির বাজার পরিদর্শনের ছবিতে মানুষ চমকিত হয়েছে, তবে আবদুল হামিদ বরাবর তার এই সাধারণ মানুষের ভাবমূর্তি কখনও পাল্টাতে চান না।

২০১৩ সালে সিঙ্গাপুর সফরে গিয়ে হোটেলে নামি হোটেলের স্যুইট ভাড়া দিনে সাত হাজার ডলার শুনে কম দামি হোটেলে ৬০০ ডলারের স্যুইটে থেকেছেন। ফলে আগের সফরে গ্র্যান্ড হায়াতে রাষ্ট্রপতির হোটেল স্যুইটের ভাড়া যত ছিল সে সময় ২৩ সদস্যের প্রতিনিধিদলের (নিরাপত্তাকর্মীসহ) সবার হোটেল ভাড়া মিলেও তত হয়নি।

আবদুল হামিদ বরাবর জনগণের সঙ্গে থাকতে পছন্দ করেন। তিনি বহুবার বিষয়টি বলেছেন। নিরাপত্তার ঘেরাটোপ তার ভালো লাগে না। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও তিনি বিশেষ করে নিজ এলাকার লোকদের জন্য তার দুয়ার উন্মুক্ত রেখেছেন।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন আবদুল হামিদ। আর রাষ্ট্রপতি হওয়ার এক বছর পূর্তির পর গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, বঙ্গভবন তার ভালো লাগে না।

আবদুল হামিদ সেদিন বলেন, ‘খাঁচার পাখিরে যতই ভালো খাবার দেয়া হোক, সে তো আর বনের পাখি না। আমি একটা দায়িত্ব হিসেবে এখানে এসেছি। সংসদে মনের খোরাক পেতাম, বঙ্গভবনে পাই না। মনটা অনেক কিছু চায়।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here