ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ডাক্তারের অভাবে চিকিৎসা পাচ্ছেনা   রোগিরা।   

0
49
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :
ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক সংকট চলছে। এই হাসপাতালটি থেকে পদোন্নতিজনিত কারনে এক সাথে ১০জন চিকিৎসক অন্যত্র বদলী হওয়ায় এই সংকটের সৃষ্টি হয়। এই অবস্থায় হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা স্বাভাবিক রাখতে হাসপাতালে থাকা অন্য চিকিৎসকরা হিমসিম খাচ্ছেন।
 এতে করে রোগীদেরকেও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
এদিকে হাসপাতালে চিকিৎসক সংকটের বিষয়টি গতকাল সোমবার দুপুরে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক ডাঃ মোঃ আবুল কালাম আজাদকে অবহিত করেছেন সিভিল সার্জন সার্জন ডাঃ মোঃ শাহ আলম।
 মহাপরিচালক বিষয়টি অবহিত হয়ে এ বিষয়ে অচিরেই ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।
সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়কসহ ৫৭জন চিকিৎসকের পদ রয়েছে। এর মধ্যে ১০টি পদ দীর্ঘদিন ধরে খালি আছে। ১জন চিকিৎসক চলতি দায়িত্বে হবিগঞ্জ জেলায় রয়েছেন এবং গত রোববার ১০জন চিকিৎসক অন্যত্র বদলি হয়ে যান। এতে করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালটিতে বর্তমানে তত্ত্বাবধায়ক সহ ৩৬জন চিকিৎসক রয়েছেন। চিকিৎসক সংকটের কারনে বর্তমানে হাসপাতালের পাঁচটি বিভাগ কনসালটেন্ট শূন্য হয়ে পড়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ নভেম্বর স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত ১০জন চিকিৎসকের পদোন্নতির একটি আদেশ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
ওই আদেশে হাসপাতালের ১০ জুনিয়র কনসালটেন্টকে সহকারি অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়। সহকারি অধ্যাপক পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা হলেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পদায়ন করা শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ইকবাল হোসেন, মেডিসিনের এম.এ ফয়েজ ও এ.কে.এম শফিকুল ইসলাম, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পদায়ন করা চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সায়েম আহমেদ, সার্জারি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক জুনায়েদুর রহমান, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পদায়ন করা হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মোঃ আবুল এহসান ও রাজীব আহসান, চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক মোঃ আলামিন, শরীফ মাসুমা ইসমত, মোশফেকুর রহমান।
হাসপাতালের চক্ষুবিভাগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর যোগদান করা ডাঃ আল আমিনও পদোন্নতিজনিত কারণে গতকাল হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে নতুন কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন।  এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট (এনেস্থেশিয়া) খোকন দেবনাথকে হবিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চলতি দায়িত্বে পাঠানো হয়েছে। শরীফ মাসুমা ইসমত ২০১৭ সালের ১৫ জুলাই থেকে বহির্বাংলাদেশ ছুটিতে কানাডায় অবস্থান করছেন।
চিকিৎসক সংকট হওয়ার কারনে  সোমবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর দুইটা  পর্যন্ত হাসপাতালের জরুরী বিভাগে তিন থেকে চারশ এবং বহির্বিভাগে এক হাজার ২৫০জন রোগীকে হাসপাতালের ২১জন বিভিন্ন রোগের চিকিৎসক চিকিৎসা সেবা দেন। এক সাথে ১০জন চিকিৎসক পদোন্নতিজনিত কারনে অন্যত্র বদলী হয়ে যাওয়ায় হাসপাতালে আসা সাধারণ রোগীরা কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা পেতে ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।
 এ ব্যাপারে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ শওকত হোসেন বলেন, জুনিয়র কনসালটেন্ট থেকে সহকারি অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেয়ে ১০জন সহ মোট ১১ চিকিৎসক এই হাসপাতাল থেকে অন্যত্র বদলি হয়েছেন।
 এই ১০জনই হাসপাতালের বর্হিবিভাগ ও বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতেন। এক সাথে ১০জন চিকিৎসক চলে যাওয়ায় হাসপাতালের পাঁচটি ওয়ার্ড একেবারেই চিকিৎসক শূন্য হয়ে পড়েছে। কিভাবে রোগীদের চাপ সামাল দেব এই দুশ্চিন্তায় রয়েছি।
 তিনি বলেন, আপাতত মেডিকেল অফিসার দিয়ে রোগীদের চাপ সামাল  দেয়া হচ্ছে। তিনি হাসপাতালে দ্রুত চিকিৎসক পদায়ন দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানান।
এ ব্যাপারে জেলার সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ শাহ আলমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি চিকিৎসক সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন, পদোন্নতিজনিত কারনে একসাথে ১০জন চিকিৎসক অন্যত্র বদলী হয়ে যাওয়ায় এই সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, বিষয়টি ডিজি মহোদয়কে অবহিত করেছি। তিনি অচিরেই ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।
watch price in bangladesh

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here