রুনা লায়লা’র প্রশংসায় বাকরুদ্ধ তিন্নি

0
120

অভি মঈনুদ্দীন : উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী, সুরকার বাংলাদেশের গর্ব রুনা লায়লা’র কাছ থেকে প্রাপ্ত প্রশংসায় অনেকটাই বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন এই প্রজন্মের সেরাকন্ঠ’খ্যাত সঙ্গীতশিল্পী কানিজ খাদিজা তিন্নি। দীলিপ বিশ^াস পরিচালিত ‘আনারকলি’ সিনেমায় রুনা লায়লা’র কন্ঠে জনপ্রিয় নায়িকা ববিতা’র কন্ঠে ‘আমার মন বলে তুমি আসবে’ গানটি সিনেমাটি মুক্তির সময়কালেই দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। কালের বিবর্তনে রুনা লায়লা’র কন্ঠের এই গানটি বাংলা সিনেমার গানের ইতিহাসে এক মাইলফলক গান হিসেবে বিবেচিত হয়। গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা ও সত্য সাহা’র সুর করা রুনা লায়লা’র এই গানটি এই প্রজন্মের সঙ্গীতশিল্পী কানিজ খাদিজা তিন্নি’রও অনেক প্রিয় একটি গান। তাই প্রতিদিনের মতো গেলো সোমবার ঘুম থেকে উঠে রেওয়াজের এক পর্যায়ে এই গানটিই নিজের কন্ঠে তুলে নিয়ে নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করেন তিনি। তার কন্ঠে গানটি শুনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিন্নির পরিচিত’জনরা ছাড়াও অনেক সঙ্গীতশিল্পী, অভিনয়শিল্পী’সহ সংস্কৃতি অঙ্গনের আরো অনেকেই তার সুরেলা গায়কীর প্রশংসা করেন। তিন্নির কন্ঠে গাওয়া গানটি গতকাল পর্যন্ত তার ওয়াল থেকে ৩৬ বার শেয়ার হয়েছে। কিন্তু সোমবার দিন পেরিয়ে রাতে যখন গানটির মূল শিল্পী জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পী ও সুরকার রুনা লায়লা যখন তিন্নির গায়কী নিয়ে প্রশংসা করেন, তখন যেন তিন্নি বিশ^াসই করতে পারছিলেন না যে এটা সত্যি সত্যিই রুনা লায়লা’র কমেন্ট। গভীর রাতে যখন তিন্নি নারায়ণগঞ্জে নিজ বাসায় নিজ বিছানায় শুয়ে ছিলেন, রুনা লায়লা’র কমেন্ট দেখে তার আধো আধো ঘুম ভেঙ্গে যায়। তিনি ঘুম থেকে উঠে নানাজনের সঙ্গে ক্রস চেক করে কনর্ফাম হলেন যে এটি রুনা লায়লারই নিজস্ব ফেসবুক আইডি। আর তারপর থেকে সারারাত তিন্নি ঘুমাতে পারেননি। রুনা লায়লা’ তিন্নির গান শুনে মুগ্ধ হয়ে লিখেছেন ‘বেটার দেন দ্য অরিজিনাল’। রুনা লায়লা’র এমন কমেন্ট’এ তিন্নি লিখেন, ‘ আমি আসলে কল্পনা করতে পারছি না। আমার মতো ছোট্ট একটা মানুষ কে আপনি এত বড় একটি কথা বলেছেন। এর থেকে বড় পাওয়া, বড় প্রাপ্তি আমার জীবনে আর কীইবা থাকতে পারে। আল্লাহ আপনাকে অনেক ভালো রাখুন, সুস্থ রাখুন। আপানকে ঘিরে আমার স্বপ্ন, জীবনে একটিবার হলেও আমি আপনাকে দেখতে চাই। আমার স্বপ্নের একাংশ পুরণ হয়েছে। আরেকাংশ পুরণ হবে আপনার সাাত পেলে, ইনশাআল্লাহ। আপনাকে হাজার হাজার শ্রদ্ধা, ভালোবাসা।’ উল্লেখ্য ১৮ লাখ টাকায় নির্মিত দীলিপ বিশ^াস পরিচালিত ‘আনারকলি’ সিনেমাটি ১৯৮০ সালের ৩ ডিসেম্বর মুক্তি পেয়েছিলো। প্রায় ৭০ লাখ টাকা সেই সময় ব্যবসা করেছিলো। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছেন জোহরা গাজী। সিনেমার সব গান লেখা ছিলো গাজী মাজহারুল আনোয়ারের। উল্লেখ্য তিন্নির গানে হাতেখড়ি মায়া ঘোষের কাছে। পরবর্তীতে ছায়ানটের রেজওয়ান আলী লাভলু’র কাছে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের তালিম নিয়েছেন। তিন্নির মায়ের নাম রুনা লায়লা। তার বাবা মো: কাওসার ইমাম একজন ব্যবসায়ী।

watch price in bangladesh

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here