বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে দ্রুত

0
57

করোনা ভাইরাস মহামারীতে বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি গত বছরের দুঃসহ অবস্থা পেছনে ফেলে এ বছর দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াবে। এ বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার গড়ে ৫.৯ শতাংশ হতে পারে, যা ১৯৭০ এর দশকের পর সবচেয়ে গতিময়। গত জানুয়ারিতে এই প্রবৃদ্ধির হারের পূর্বাভাস ছিল ৫.৩ শতাংশ। যদিও অর্থনীতির গতির সঙ্গে তাল মেলাতে না পারলেও কর্মসংস্থান বাড়বে ধীরে। বিভিন্ন দেশের ৫০০ অর্থনীতিবিদ নিয়ে পরিচালিত জরিপের ফলের ভিত্তিতে গতকাল শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমন পর্যবেক্ষণ তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বড় অর্থনীতির দেশগুলোর শক্তিশালী অবস্থানের ওপর নির্ভর করে বিশ্ব অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর গতি এ বছর সবচেয়ে দ্রুত হতে পারে। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের মতো বড় অর্থনীতির দেশগুলোতে টিকাদান কার্যক্রম জোরদার, বিপুল তারল্যের জোগান, অপ্রত্যাশিত বাজেট সহায়তা এবং গতিশীলতা বজায় রাখতে পরিস্থিতি অনুযায়ী অর্থনৈতিক কার্যক্রমের খাপ খাওয়ানোর ধারাবাহিকতা। গত মার্চ মাস জুড়ে চলা এই জরিপে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়লে অর্থনীতির গতি হারানোর শঙ্কার প্রশ্নে বিভক্ত মত দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা।

তবে ২০২১ সালে বিশ্বের ৪৪টি দেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হতে যাচ্ছে এ বিষয়ে জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৫৫ শতাংশই একমত। এই হার তিন মাসে আগে পরিচালিত জরিপের চেয়ে বেশি। মূলত যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্থনীতির এই পুনরুদ্ধার গতি পেতে যাচ্ছে এবং এ বছর চিনের প্রবৃদ্ধির হারও মহামারীপূর্ব পর্যায়ে ফিরে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এইচএসবিসি ব্যাংকের গ্লোবাল চিফ ইকনোমিস্ট জ্যানেট হেনরি বলেন, একটি সংহতিপূর্ণ বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এ বছর জিডিপির প্রবৃদ্ধির হারে আমাদের পর্যবেক্ষণে থাকা প্রতিটি অর্থনীতিই একটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রতিফলন দেখাবে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষে চিনে প্রথম করোনা ভাইরাস মহামারীর সূত্রপাত হয়। পরবর্তী দুই মাসের মধ্যেই গোটা বিশ্বে মহামারী ছড়িয়ে পড়ে। হু হু করে বাড়তে থাকে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। লকডাউনসহ নানা কারণে বন্ধ হয়ে যায় দেশে দেশে আকাশ স্থল ও জলপথে যোগাযোগ। ফলে ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ মন্দার কবলে পড়ে বিশ্ব অর্থনীতি।

এ দিকে রয়টার্সের জরিপে প্রাপ্ত প্রবৃদ্ধির হার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রাক্কলিত ৬ শতাংশের চেয়ে সামান্য কম হলেও পর্যবেক্ষণে থাকা ৭৪টি অর্থনীতির মধ্যে ৩০ শতাংশের প্রবৃদ্ধি আইএমএফ-এর পূর্বাভাসের চেয়ে বেশি হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

watch price in bangladesh

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here