খুলনায় ঈদের জামাত কখন কোথায়

0
54

খুলনা ব্যুরোঃ খুলনায় পবিত্র ঈদুল আজহার প্রধান ও প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায় টাউন জামে মসজিদে। প্রধান জামাতে ইমামতি করবেন টাউন জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ সালেহ। একই স্থানে দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায় এবং তৃতীয় ও শেষ জামাত সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনা সিটি করপোরেশন পরিচালিত বায়তুন নূর জামে মসজিদ কমপ্লেক্সে পবিত্র ঈদুল আজহার দু’টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রথম জামাত ও সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। সরকারি বিএল কলেজ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায় একটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

তারের পুকুর আল-হেরা জামে মসজিদে প্রথম জামাত সকাল ৭টায়, দ্বিতীয় জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে। মুজগুন্নি আবাসিক বায়তুন নাজাত জামে মসজিদে সকাল ৭টা ও ৮টায় দু’টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া রায়পাড়া মসজিদে মিনায় সকাল ৮টায়, আমতলা মসজিদে দু’টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথমটা সকাল ৭টায় ও দ্বিতীয়টা ৮টা ১৫ মিনিটে। মতি মসজিদে প্রথম জামাত সকাল ৭টায় ও দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। খানজাহান আলী জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, মোল্লাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে, হাজী মালেক কবরখানা জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়, লবণচরা হাজী আব্দুল মালেক জামে মসজিদে সকাল ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

খুলনা সিটি করপোরেশনের ৩১টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে সিটি করপোরেশনের সহায়তায় ও ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের তত্ত্বাবধানে পৃথকভাবে নিজেদের সময় অনুযায়ী মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। অনুরূপভাবে জেলার সব উপজেলাসমূহের মসজিদে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে এক তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়েছে, ঈদের নামাজ আদায়ের সময়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে কাতারে দাঁড়াতে হবে। মুসুল্লিদের বাসা থেকে ওযু করে এবং মাস্ক পরে জামাতে আসতে হবে। মসজিদের অযুর স্থানে সাবান ও স্যানিটাইজার রাখতে হবে। নামাজ শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো যাবে না। মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে পরিস্কার করতে হবে এবং মুসল্লিরা বাসা থেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন। মসজিদের টুপি এবং জায়নামাজ ব্যবহার করা যাবে না। শিশু, বয়োবৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি, অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ঈদের জামাতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। করোনাভাইরাস মহামারি থেকে রক্ষা পেতে নামাজ শেষে মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া করা হবে।

watch price in bangladesh

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here