গোদাগাড়ীর ‘জঙ্গি আস্তানা’য় অস্ত্র-বোমা

0
261

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বেনীপুরের জঙ্গি আস্তানায় অস্ত্র ও বোমা পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অপারেশন ‘সান ডেভিল’ পরিচালনাকারী দলের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি। তবে দলের সঙ্গে থাকা একটি সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ওই সূত্রটি দ্বিতীয় দিনের অভিযানের সময় আস্তানাটি থেকে ১১টি বোমা, একটি পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগজিন পাওয়া গেছে। এখন বোমাগুলো নিষ্ক্রিয়ের কাজ চলছে। সকাল পৌনে ১১টার দিকে একটি বিকট শব্দ শোনা গেছে। মাটির নিচে পুঁতে বোমা নিষ্ক্রিয়ের সময় বিস্ফোরণের শব্দটি শোনা যায়। বোমা নিষ্ক্রিয় করার কাজ করছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) বিশেষ শাখার বোমা বিশেষজ্ঞ দল। মাঠের ভেতর নির্জন এই বাড়িটিতে জঙ্গিদের অস্ত্র পরিচালনা ও বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো বলে ধারণা পুলিশের। বিষয়গুলো নিশ্চিত হতে আরও গভীরভাবে অনুসন্ধান করছে অভিযান পরিচালনাকারী দল। শুক্রবার সকাল থেকে এই জঙ্গি আস্তানায় দ্বিতীয় দিনের মতো অভিযান শুরু হয়। পরে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমিত চৌধুরী ক্ষুদেবার্তায় সাংবাদিকদের জানান, জঙ্গি আস্তানায় চারটি ঘর আছে। তবে সেখানে জীবিত অবস্থায় কেউ নেই। যদিও আস্তানার ভেতরে কোনো লাশ কিংবা বিস্ফোরকদ্রব্য আছে কি না সে ব্যাপারে কিছু জানাননি তিনি। বৃহস্পতিবার ভোররাতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে মাটিকাটা ইউনিয়নের বেনীপুর গ্রামের সাজ্জাদ আলীর বাড়িটি ঘিরে ফেলে পুলিশ। এরপর ভেতরে থাকা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হলেও তারা সাড়া দেয়নি। পুলিশ তখন ফায়ার সার্ভিসকে ডেকে পানি ছিটিয়ে বাড়ির পেছনের মাটির দেয়ালটি ধসিয়ে ফেলতে তৎপরতা শুরু করে।

এ সময় জঙ্গিরা বাড়ির ভেতর থেকে বেরিয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মী আব্দুল মতিন নিহত হন। আর আহত হন দুই পুলিশ সদস্য। এ ঘটনার পর দুই নারীসহ পাঁচ জঙ্গি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মহুতি দেন।

watch price in bangladesh

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here